Header Ads

বাঙালির রসগোল্লা দিবস উদযাপনে রসে টইটম্বুর হয়ে উঠলো গোটা বাংলা

             
১৪ ই নভেম্বর শিশু দিবস আমরা সকলেই জানি। কিন্তু বাঙালির কাছে আজ একটা বিশেষ দিন। অনেক বাঙালি হয়তো জানেন না যে কী জন্য আজকের দিনটি বাঙালির কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আজ রসগোল্লা দিবস। বাঙালি মানেই মিষ্টি। আর বাঙালি মিষ্টি মানেই রসগোল্লা। চিনি মাখানো ছানাতে ভরপুর রসে টইটম্বুর তুলতুলে এমন মিষ্টির স্বাদ যেন অমৃত সমান।


কয়েক বছর আগে রসগোল্লা নিয়ে বিতর্ক দানা বাঁধে। পশ্চিমবঙ্গ ও ওড়িশার মধ্যে রসগোল্লা নিয়ে চলে ঠান্ডা যুদ্ধ। ২০১৭ সালের ১৪ ই নভেম্বর সুপ্রিমকোর্টের রায়ে ওড়িশাকে হারিয়ে পশ্চিমবঙ্গ রসগোল্লাতে জিআই স্বীকৃতি অর্জন করে। এ দিনটিকে ২০১৭ সাল থেকে রসগোল্লা দিবস হিসেবে রাজ্যে পালিত হচ্ছে।

রসগোল্লাকে নিয়ে ২০১৮ সালে পরিচালক পাভেল 'রসগোল্লা' নামের একটি বাংলা চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন। রসগোল্লার ইতিহাস নিয়ে বানানো হয়েছিল সেই ছবি৷ প্রতিটি বাঙালি দর্শকদের মন জয় করে নিয়েছিল এই ছবি। সেখানে রসগোল্লার প্রকৃত ইতিহাস তুলে ধরা হয়। রসগোল্লার জনক হলেন নবীন ময়রা। তাঁর কাঁচা হাতেই রসগোল্লার জন্ম হয়।

উৎসব পার্বণে রসগোল্লার একটা আলাদা বৈচিত্র্য রয়েছে। যার জন্য রসগোল্লাকে অনেক জায়গায় রাজভোগও বলা হয়। রসগোল্লাকে আবার কাঁচাগোল্লাও বলা হয়। রসগোল্লার সারা বিশ্বজোড়া খ্যাতি রয়েছে। অবাঙালিদের কাছে একটা কথা আমরা বারবার শুনে থাকি যে বাঙালিরা রসগোল্লা খেতে প্রচন্ড ভালোবেসে। প্রবাসী বাঙালিরা বাড়ি যাওয়ার সময় তাদের অবাঙালি বন্ধুরা তাকে অনুরোধ করে থাকে বাড়ি থেকে রসগোল্লা নিয়ে আসার জন্য। রাজ্য দেশের সীমানা ছাড়িয়ে রসগোল্লা খেতে এখন অনেক মানুষই ভালোবাসেন। তার প্রত্যেকটি অবদান এককথায় বাঙালির।   

রসগোল্লা দিবস উদযাপনে আজ মেতে উঠেছে পুরো পশ্চিমবঙ্গ। জেলায় জেলায় বিভিন্ন মিষ্টি দোকানে আড়ম্বরে পালিত হচ্ছে রসগোল্লা দিবস। বিনামূল্যে অনেক জায়গায় রসগোল্লা বিতরণের ব্যবস্থা করা হয়েছে বেশ কিছু মিষ্টান্ন ভাণ্ডার থেকে৷ সারা দেশ যখন শিশু দিবস পালন করছে সেখানে বাঙালি রসগোল্লা দিবস পালন করে নিজেদের পরম্পরা বজায় রাখছে।

প্রতিবেদন- সুমিত দে                                                         
                                            

No comments