Header Ads

সেরা বাঙালি জুনিয়র ফুটবলার হিসেবে সায়ন প্রামানিক ভারতের অনুর্দ্ধ ২৩ দলে জায়গা করে নিলেন পাকাপাকিভাবে

'সব খেলার সেরা বাঙালির তুমি ফুটবল।' বাঙালির রক্তে ওতোপ্রোতো ভাবে মিশে আছে ফুটবল। যে খেলাকে ঘিরে কোটি কোটি বাঙালির স্বপ্ন জড়িয়ে রয়েছে। বাংলার ঘর থেকে উঠে এসেছে অসংখ্য বিখ্যাত ফুটবলার। যারা ফুটবল খেলার মাধ্যমে উজ্জ্বল করেছে দেশের নাম।  


  
আসুন এ প্রজন্মের একজন নতুন ফুটবলারের সাথে আপনাদের পরিচয় করিয়ে দিই। সায়ন প্রামানিক একজন তুখোড় ফুটবলার। সম্প্রতি তিনি ভারতীয় ফুটবল অনুর্দ্ধ ২৩ দলে খেলার সুযোগ পেয়েছেন। কিছুদিন আগে ইরানের সঙ্গে একটি প্র্যাকটিস ম্যাচে তিনি ভারতীয় দলের অধিনায়ক হিসেবে জয়লাভ করলেন। প্রায় সত্তর মিনিটের মাথায় তিনি গোল করে পরাজিত করেন ইরানকে। ম্যাচের আগে তাঁকে নিয়ে অনেক তর্ক-বিতর্ক দানা বাঁধে। কেউ কেউ তাঁর নিন্দাও করেছিলেন। তিনি নাকি ভালো খেলতে পারবেন না ম্যাচে এমন কথাও বেজেছে তাঁর কানে। অথচ এই ম্যাচে জয়লাভের মাধ্যমে তিনি সকলকে মোক্ষম জবাব দিয়েছেন। তিনি যে একজন যোগ্য ফুটবলার এই ম্যাচের মাধ্যমে তা প্রমাণ করেছেন।  

সেরা বাঙালি বিজয়ী জুনিয়র ফুটবলার সায়ন প্রামানিক

তিনি বাঙালির আবেগের কেন্দ্র ইস্টবেঙ্গল ও মোহনবাগান দুই ক্লাবেই খেলেছেন। ইস্টবেঙ্গল ক্লাবে খেলেছেন চার বছর। যার মধ্যে দুই বছর তিনি এই ক্লাবের অধিনায়ক হিসেবেও খেলেছেন। কিন্তু হঠাৎ করে তিনি চোট পান। দুই মাসের মতো বিশ্রাম নিতে হয় তাঁকে। সেকারণে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব থেকে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এরপর চোট সেরে যাওয়ার পর তিনি দুইবছর ধরে মোহনবাগান ক্লাবে খেলতে শুরু করেন। এই দুই বছরের মধ্যে এক বছর এই ক্লাবেরও তিনি অধিনায়ক ছিলেন। অনুর্দ্ধ ২৩ দলে সুযোগ পাওয়ার আগে পর্যন্ত তিনি যুক্ত ছিলেন মোহনবাগান ক্লাবের সাথে। 



এই বছর সেরা বাঙালি জুনিয়র ফুটবলার হিসেবে তিনি পুরস্কৃত হয়েছেন সসম্মানে। তিনি পড়াশোনা সূত্রে যুক্ত ছিলেন নিউ আলিপুর কলেজে। যে কলেজ তাঁর স্বপ্নপূরণে বিশেষভাবে সহায়তা করেছে। নিউ আলিপুর কলেজের পিন্সিপাল থেকে শুরু করে তাঁর কলেজের দাদারাও তাঁকে সর্বদা সমর্থন করে এসেছেন। তাঁর কলেজের দাদারা বলতে অরূপ মিত্র ও সৌরভ সেন তাঁকে সাহস জোগিয়েছেন। এছাড়াও অভিনেতা আবির চ্যাটার্জি তাঁর একনিষ্ঠ সমর্থক। শুধু তাই নয় তাঁর দাদা অভিষেক দাসও তাঁকে সাহস দিয়েছেন। এছাড়াও তাঁর পরিচিত কয়েকজন দাদা যেমন সাহেব হালদার, সুরজিৎ মাইতি এনারাও তাঁকে সমর্থন করেছেন। এনারা না থাকলে তিনি খেলার সাহস পেতেন না বলে জানিয়েছেন ফুটবলার সায়ন প্রামানিক।   



ভারতের অনুর্দ্ধ ২৩ ফুটবল দলে তিনি তেইশ নম্বর জার্সিতে খেলা শুরু করেছেন একজন অধিনায়ক হিসেবে। তিনি ফুটবলে কিছুটা সফল হলেও এখনও হাতে তাঁর বাকী রয়েছে অসংখ্য খেলোয়াড়। তিনি আইএসএলে অ্যাটলিকো ডি কলকাতাতে খেলার অফার পেয়েছেন। তবে আইএসএলে তিনি খেলবেন কিনা তা এখনও তিনি স্পষ্ট করে জানান নি। 

সায়ন দাস ও তাঁর টিম
তিনি দেশের মুখ একদিন উজ্জ্বল করে সমগ্র বাঙালি জাতির প্রসার বৃদ্ধি করবে এ বিষয়ে সন্দেহ নেই। অনুর্দ্ধ ২৩ এর ভারত বনাম ইরান ম্যাচে তিনি যে যোগ্যতা দেখিয়েছেন তাতে স্পষ্ট করে বলা যায় যে ফুটবলার সায়ন প্রামানিক খুব তাড়াতাড়ি ভারতের ফুটবলে ইতিহাস গড়তে চলেছেন। 

প্রতিবেদন- সুমিত দে

No comments